গ্রাফিক্স ডিজাইনের মেরুদণ্ড! নয়া গ্রাফিক্স কামলাদের জন্য মাস্ট রিড!

যদিও আমি প্রফেশনাল কোন গ্রাফিক্স ডিজাইনার না তবে ওয়েব ডিজাইনে কাজ করার সুবাধে এই সেক্টরে ডিজাইন হালকা পাতলা আনাগোনা আছে।

ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি গ্রাফিক্স ডিজাইনের মেরুদণ্ড হলো টাইপ্রোগ্রাফি এবং কালার সিলেকশন। এর ভুল প্রয়োগে যেকোন ডিজাইন মার খায়।

যাদের এই মেরুদণ্ড দুর্বল বিলিভ মি লং রানে আপনি কিছুই করতে পারবেন না, হ্যাঁ হয়ত শর্ট রানে সার্ভাইভ করতে পারেন এবং কিছু কামাই করতে পারেন কিন্তু যদি স্বপ্ন থাকে ইন্টারন্যাশনাল কোন প্রতিষ্ঠানে লং টার্ম কোন রিমোট জব পাওয়ার তাহলে সেটা সপ্নই থেকে যাবে।

আমি অনেক ডিজাইনার দেখেছি যাদের মার্কেটপ্লেসে কোন প্রোফাইলই নাই, শুধু বিহান্স আর ড্রিবলে নিজের পোর্টফলিও তৈরি করে রেখেছে যার মাধ্যমে প্রচুর ক্লায়েন্ট তাকে নক করছে, সরাসরি কাজ করছে । কেন জানেন? ওদের পোর্টফলিও দেখলে আপনার একবার হলেও WOW শব্দটির কথা মনে হবে।

বেশ কিছুদিন আগে আমি নিজে ব্যক্তিগত কাজের জন্য এক দুজন ডিজানাইর হায়ার করছিলাম শুধুমাত্র তাদের বিহান্স আর ড্রিবল পোর্টফলিও দেখে।

আপনার ব্যাবহারের জন্য হাজার হাজার কালার আছে, ফন্ট আছে তারমানে এই না যে যেকোন একটা বসিয়ে দিলেন। আপানার ডিজাইনটি কার জন্য করছেন, কোথায় ব্যাবহার করা হবে, ইত্যাদি বিষয় জেনে সে অনুযায়ী টাইপ্রোগ্রাফি এবং কালার সিলেকশন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ধরুন আপনাকে বলা হলো একটা অফিস কর্মকর্তাদের বনভোজনের জন্য ব্যানার তৈরি করতে আপনি কালার সিলেকশন সহ সবকিছুই ভাল করলেন কিন্ত ফন্ট হিসাবে ব্যাবহার করলেন Jukerman ফন্টটি। ব্যাস আপনার ডিজাইন এখানেই মার খাবে।

হরর মুভি কমবেশি আমরা দেখেছি। যখনি হরর মুভির কথা বলা হয় তখন আমাদের মাথায় কি আসে? ভয়-ডার্ক-কালো, ভায়লেন্স-রক্ত-লাল
খেয়াল করে দেখবেন ৯০% হরর মুভির পোস্টারে এই কালো ও লালের ব্যাবহার বেশি করা হয় ভয় আর ভায়লেন্স কে ফুটিয়ে তোলার জন্য। সাথে ব্যাবহার করা হয় অদ্ভত সব ফন্ট।

সো কিভাবে বশে আনবেন গ্রাফিক্স ডিজাইনের মেরুদণ্ডকে?
প্রক্রিয়াটা একটু জটিল এবং সময় সাপেক্ষ। তবে অসম্ভব কিছু নয়। বড় বড় ডিজাইনারদের কাজ দেখুন সেগুলা নিজে নিজে প্র্যাকটিস করুন। সকল জনপ্রিয় ফন্ট গুলার নাম মনে রাখার চেষ্টা করুন, কোন ডিজাইনার কোন ফন্ট কোন কাজের জন্য কি ফুটিয়ে তোলার জন্য ব্যাবহার করেছে তা খুজে বের করার চেষ্টা করুন। কালার কম্বিনেশন সম্পর্কেও ভাল জ্ঞান অর্জন করুন, কোন কালারের সাথে কোনটি খাপ খাবে সেটা ভাল করে আয়ত্তে আনতে প্র্যাকটিসের কোন বিকল্প নেই। কি জন্য ডিজাইনটা করছেন তার উপরও কালার সিলেকশন অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখে। যেমন শোক রিলেটেড কোন কিছুতে দেখবেন কালো কালারটা বেশি ব্যাবহার করা হয়।

একসময় আমার সপ্ন ছিল ওয়ার্ল্ডের সর্ববৃহৎ ক্রিয়েটিভ মার্কেটপ্লেস এনভাটো এর থিমফরেস্টে আমার কোন প্রোডাক্ট যুক্ত করার। কিন্তু এর জন্য যে ওয়ার্ডক্লাস ডিজাইন প্রয়োজন সেটা আমি করতে পারব কিনা সন্দেহে ছিলাম। কোডিং এর কথা নাহয় বাদই দিলাম।

বর্তমানে আমার দুইটা টেম্পপ্লেট আছে থিমফরেস্টে https://themeforest.net/user/ferdousoly/portfolio যেগুলা শূন্য থেকে আমার হাতে ডিজাইন ও ডেভেলপ করা। প্রচুর ডিজাইন দেখতে হইছিল এই প্রোডাক্ট দুটি ডিজাইন করার সময়। কি কালার, টাইপ্রোগ্রাফি ব্যাবহার করব সেটা নিয়ে অনেক কনফিউশনে ছিলাম। তখন আমি আইডিয়া জেনারেট করেছিলাম বড় বড় ডিজাইনারদের কাজ দেখে। অবশ্যই আমি কাউকে কপি করিনি, শুধু ধারনা নিয়েছি।
একজন রাজনীতিবিদ যেমন প্রতিদিন পত্রিকার রাজনীতি রিলেটেড খবর গুলিতে একবার হলেও চোখ বুলান তেমনি আমি মনে করি একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনারের প্রতিদিন একবার হলেও Behance Dribbble চোখ বুলানো উচিত।
ধন্যবাদ লেখাটি শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য। গ্রাফিক্স ডিজাইনের মেরুদণ্ড সম্পর্কে আপনার কোন মতামত থাকলে জানাতে পারেন কমেন্টের মাধ্যমে। :)

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।